আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



চকরিয়ার লক্ষ্যারচরে পৈতৃক সম্পত্তি থেকে উচ্ছেদ করতে ভাইকে জেলে দিয়ে ভাবির উপর দেবরদের হামলা

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচরে পৈতৃক বসতভিটে ও দীর্ঘদিনের দখলীয় খাস জমি থেকে উচ্ছেদ করতে আপন ভাইকে পুলিশ দিয়ে করে জেল হাজতে পাঠিয়ে ভাইয়ের স্ত্রীর হামলা চালিয়েছে সহোদররা (দেবর)। এমনকি মাকে ব্যবহার করে উল্টো মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে হয়রাণী মূলক মিথ্যা মামলার আসামি করতে পাঁয়তারার অভিযোগ উঠেছে আপন সহোদরদের বিরুদ্ধে।
ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড হাজীপাড়া গ্রামে।
স্থানীয় মরহুম ডাঃ আবদুস ছোবহানের পুত্র কায়সার সরওয়ারের স্ত্রী রিনা আকতার শুক্রবার সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের বলেন, আমার শ্বশুর জীবিত থাকতে (প্রায় ১১ বছর পূর্বে) তাঁকে শিকল দিয়ে বেধে রেখে তার সম্পত্তি গুলো আমার দেবর মাসুদ হেবা করে নেয়। এ ঘটনার প্রতিবাদ করায় আমরা তাদের শত্রু হয়ে যাই। পরবর্তীতে আমরা পরিবার নিয়ে চট্টগ্রাম শহরে বসবাস করতাম। দ্রব্যমূল্যের উর্ধগতির কারনে সাম্প্রতিক সময়ে শহর থেকে গ্রামে ফিরে এলে, আমার স্বামীর পৈতৃক বাড়িতে আমাদেরকে ঢুকতে দেয়নি। বসতভিটের সাথে লাগোয়া আমাদের দীর্ঘদিনের একটি ভোগ দখলীয় খাস জমিতে কাঁচাবাড়ি আছে। আমারা সেখানেই উঠি। সেখান থেকেও আমাদের উচ্ছেদ করতে বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্র করতে থাকে আমার দেবরেরা।
আমাদের উচ্ছেদ করতে মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেন থানায়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা খাস জমি সংক্রান্ত বিরোধ থানায় মিমাংসা করা যাবে না মর্মে জানিয়ে দিলে, আমাদের বিরুদ্ধে নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করে।
ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে আমার স্বামীর বিরুদ্ধে করা ষড়যন্ত্র মূলক মামলায় গত কয়েকদিন আগে আমার স্বামীকে গ্রেফতার করেন পুলিশ।

তিনি আরও বলেন, আমার স্বামীকে গ্রেফতার করার পরে আমাদেরকে উচ্ছেদ করার চুড়ান্ত পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করার জন্য ১৯ মে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আমার দেবর মাসুদ, তারেক ও আদেল আমাদের উপর হামলা করে ও মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেওয়ার চেষ্টা করে। আমাদের শোর চিৎকারে এলাকাবাসী ও স্থানীয় এমইউপি শহিদ উল্লাহ মেম্বারসহ এসে আমাদেরকে উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য পাঠায়।

রিনা আকতার আরো বলেন, আমাদেরকে মারধরের ঘটনাটি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে, আমার বৃদ্ধ শাশুড়ীকে মারধর করা হয়েছে বলে মিথ্যা ঘটনা সাজিয়ে উল্টো আমাদের বিরুদ্ধে মামলা সাজানোর পাঁয়তারা করছে আমার দেবরেরা।
লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ড এমইউপি ও প্যানেল চেয়ারম্যান শহিদ উল্লাহ জানান, ঘটনার খবর পাওয়ার সাথে সাথে উপস্থিত হয়ে দু’পক্ষকে শান্ত করার চেষ্টা করি। এখানে বয়োবৃদ্ধ শ্বাশুড়ীর উপর হামলার যে কথা শুনা যাচ্ছে তা সঠিক নয়। মূলত খাস জমিটি দখলে নিতে কাইসার সরওয়ারের পরিবারের উপর হামলাটি হয়েছে।
লক্ষ্যারচর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান খ ম বুলেট জানান, দুই পক্ষই আপন সহোদর।তাই মামলা পর্যায়ে না গিয়ে স্থানীয়ভাবে বিষয়টি নিষ্টত্তির উদ্যোগ নেয়া হবে।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, দু’পক্ষই থানায় অভিযোগ দিয়েছেন। বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে থানার একজন উপপরিদর্শককে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

ছবির ক্যাপশনঃ সংবাদ সম্মেলনে কায়সার সরওয়ারের স্ত্রী রিনা আকতার ও তার সন্তান।