আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



চকরিয়ায় এসএসসি পরীক্ষার্থী অপহরণ, ৪ঘন্টা পর উদ্ধার হলেও অপহরণকারীকে ছেড়ে দিয়েছে চেয়ারম্যান, হয়নি মামলাও

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
কক্সবাজারের চকরিয়ায় স্কুল শিক্ষকের কাছে পরীক্ষার বিষয়ে আলাপ করতে যাওয়ার পথে এক এসএসসি পরীক্ষার্থীকে অপহরণ ও শ্লীলতাহানীর চেষ্টার ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় স্থানীয়দের সহায়তায় ৪ঘন্টা পর অপহৃত ছাত্রী উদ্ধার হলেও চেয়ারম্যানের জিম্মায় থাকায় অপহরণকারীকে রহস্যজনক কারণে ছেড়ে দিয়েছে ইউপি চেয়ারম্যান। এমনকি থানায় দেয়া এজাহার পক্ষকালেও মামলায় রূপান্তর ও অপহরণকারী গ্রেফতার না হওয়ায় পরিবারে চলছে আতংক, উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা।
চকরিয়া উপজেলাধীন বি.এম.চর ইউনিয়নের হাঁসি সিকদার পাড়ার জামে মসজিদের সামনে চলাচল রাস্তায় গত ২১মে’২৩ইং সন্ধ্যা ৭টার দিকে এ ঘটনা ঘটেছে।
এঘটনায় বি.এম.চর ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের কাছারী পাড়া গ্রামের মৃত নুরুল হকের স্ত্রী ও অপহরণের কবল থেকে উদ্ধার হওয়া মেয়ের মা মোতাহেরা বেগম (৫৫) বাদী হয়ে থানায় এজাহার জমা দিয়েছেন। এতে আসামী করা হয়েছে; পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের জুলার পাড়া গ্রামের আবদুল মোমেনের পুত্র অপহরণে অভিযুক্ত মোঃ শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাট (২১)সহ তার অজ্ঞাত নামা ২ জন সহযোগিকে।

বাদী মোতাহেরা বেগম অভিযোগে জানান, তার মেয়ে
মোছাম্মৎ মমতাজ আক্তার তানিসা ভেওলা মানিক চর উচ্চ বিদ্যালয়ের ২০২৩ইং সনের এস.এস.সি পরিক্ষার্থী। গত ২১মে’২৩ইং সন্ধ্যা ৭টার দিকে বাড়ী হতে পায়ে হেঁটে ভেওলা মানিক চর উচ্চ বিদ্যালয়ের পুচ্ছালিয়া পাড়ার জনৈক শিক্ষক কামাল উদ্দিনের বাড়ীতে পরিক্ষা সংক্রান্ত বিষয়ে যাওয়ার পথিমধ্যে হাঁসি সিকদার পাড়ার জামে মসজিদের সামনে চলাচল রাস্তায় পৌঁছলে অভিযুক্ত বখাটে ও পরনারী লোভী শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাটের নেতৃত্বে অজ্ঞাত নামা আরো ২ জন নিয়ে অতর্কিত ভাবে ১টি অজ্ঞাত নাম্বারের সি.এন.জি গাড়ী যোগে এসে এসএসসি পরীক্ষার্থী মোছাম্মৎ মমতাজ আক্তার তানিসাকে পথরোধ ও আক্রমণ করে। একপর্যায়ে কু-উদ্দেশ্যে এসএসসি পরীক্ষার্থীর বুকে হাত দিয়ে চাপ মেরে শ্লীলতাহানী ও
যৌনপিড়নের চেষ্টা চালায়। এসময় সে চিৎকার করতে থাকলে চতুর্দিক হতে লোকজন এগিয়ে গিয়ে গেলেও ততক্ষণে এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়েকে টানা-হেঁছড়া করে জোর পূর্বক সি.এন.জি গাড়ীতে তুলে বি.এম.চর কৃষ্ণাপুর এলাকায় অপহরণ করে নিয়ে যায়। সেখানে স্থানীয় লোকজন তথায় এলাকার লোকজন অভিযুক্ত শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাটকে আটক করে রাখে এবং অপহরণকারীদের কবল হতে এসএসসি পরীক্ষার্থী মেয়েকে রাত ১১ ঘটিকার সময় উদ্ধার করে স্থানীয় বি.এম.চর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আদ্দু নবীর হেফাজতে প্রদান করেন। ঘটনার খবর পেয়ে বাদী সহ ছাত্রীর আত্বীয় স্বজনরা উপস্থিত হলে মেম্বার আদ্দু নবী আসামী শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাটকে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নিকট হস্তান্তর করেন। কিন্তু উল্লেখিত বিষয়ে স্থানীয় ভাবে বি.এম.চর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জাহাঙ্গীর আলম আপোষ-নিষ্পত্তি করার আশ্বাস দিয়ে অপহরণকারী শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাটকে চেয়ারম্যানের হেফাজত থেকে রহস্যজনকভাবে ছেড়ে দেন।
ছাড়া পেয়ে অভিযুক্ত আসামী শাহারিয়া উদ্দিন সম্রাট বর্তমানে উল্টো অপহৃতার পরিবারকে বিচার চাইলে কিংবা মামলা করলে ফের অপহরণ করে ইজ্জত নষ্ট করার হুমকি-ধমকি দিয়ে যাচ্ছে।
এদিকে, এসএসসি পরীক্ষার্থী অপহরনের ঘটনায় এজাহার দায়ের করলেও গত এক পক্ষকালেও মামলা হিসেবে লিপিবদ্ধ কিংবা অপহরণকারী গ্রেফতার হয়নি। এনিয়ে পরিবারে চলছে আতংক, উদ্বেগ ও উৎকন্ঠা।
অভিযোগের বিষয়ে মাতামুহুরী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপপরিদর্শক অচিন্ত কুমার বলেন, থানা থেকে অভিযোগটি তাকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হলে তিনি সরেজমিনে যান। তদন্তকালে ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন মর্মে থানার অফিসার ইনচার্জকে অবহিত করেন।