আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



চকরিয়ায় বদরখালীতে অসামাজিক কার্যকলাপে বাধা দেয়ায় একজনকে কুপিয়ে জখম, লাখ টাকা ছিনতাই

চকরিয়া প্রতিনিধিঃ
চকরিয়ায় অসামাজিক কার্যকলাপে বাধা দেয়ায় একজনকে কুপিয়ে জখম করে বিদেশ যাওয়ার জন্য রক্ষিত লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। উপজেলাধীন বদরখালী ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের উত্তর নতুন ঘোনার আবদুল হাকিম সওদাগর
এর মুদির দোকানের সামনে চলাচল রাস্তায় ১৮মে ২৩ইং রাত ১১টার দিকে ঘটেছে এ ঘটনা।
এঘটনায় আহতের পিতা সৌদি আরবে থাকায় আহতের পক্ষে তার মামা মোঃ শাকিল (৩২), পিতা- মৃত আবুল কাশেম,সাং- উত্তর নতুন ঘোনা, ১নং
ওয়ার্ড, বদরখালী চকরিয়া বাদী হয়ে ১৯মে’২৩ইং সন্ধ্যায় থানায় এজাহার দায়ের করা হয়েছে। এতে বিবাদী করা হয়েছে; মোঃ জারিব (২০), পিতা- দেলোয়ার হোসেন, মোঃ মোজাহের মিয়া (২১), পিতা- জাকের হোছন বাদশা, দেলোয়ার হোছন (৫০), পিতা- মৃত জানে আলী, মোঃ বাদশা (৫২), পিতা- মৃত
মোক্তার আহামদ, সর্বসাং- উত্তর নতুন ঘোনা, ১নং ওয়ার্ড, ইউনিয়ন – বদরখালী, উপজেলা- চকরিয়া,
জেলা- কক্সবাজার সহঅজ্ঞাত নামা আরো ৩/৪ জনকে।
বাদী দায়েরকৃত অভিযোগে জানান, তার ভগ্নিপতি রমিজ উদ্দিন সৌদি আরবে থেকে জীবিকা নির্বাহ করেন। অভিযুক্তরা এলাকায় সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করায় তা বন্ধের জন্য আমার ভাগিনা মোঃ আদনান (২২)সহ এলাকার লোকজনকে সহযোগীতা করি। এর কারণে অভিযুক্তরা বাদী ও তার ভাগিনাকে নানাভাবে হুমকি-ধমকি প্রদর্শন করে। সর্বশেষ গত ১৮মে ২৩ইং রাত ১১টার দিকে ভাগিনা আদনান মহেশখালী মাতারবাড়ীস্থ তাহার পিতার বাড়ী হতে বিদেশ যাওয়ার খরচ বাবদ ১লাখ টাকা নিয়ে নিজ বাড়ীতে চলাচল রাস্তায় পৌঁছলে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থেকে ধারালো দা, ছোরা, লোহার রড,হাতুড়ী, লাঠি দেশিয় অবৈধ অস্ত্রশস্ত্রে নিয়ে ভাগিনা মোঃ আদনানকে পথরোদ্ধ করে আক্রমণ চালায়। হামলাকালে মুখের বাম পাশের ঠোঁটে স্বজোরে ছোরার ঘাঁই মেরে গুরুতর হাঁড়কাটা জখম করে। এছাড়াও সর্বশরীরে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিঠিয়ে মারাত্মক জখম করে। এসময় তার কাছে রক্ষিত বিদেশ যাওয়ায়র ১লাখ টাকা ও ২২ হাজার টাকা মূল্যের ব্যবহারের একটি স্যামসাং কোম্পানীর মোবাইল সেট ছিনিয়ে নেয়। স্থানীয় লোকজন ও আত্বীয়স্বজনরা এগিয়ে এসে তাকে গুরুতর জখম অবস্থায় উদ্ধার করে চকরিয়া সরকারী হাসপাতালে ভর্তি করেন।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তী বলেন, ঘটনার বিষয়ে একটি লিখিত এজাহার পেয়েছেন। ঘটনার সত্যতা যাছাই করতে একজন উপপরিদর্শককে তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সত্যতা পেলে মামলা নেওয়া হবে।##