আজ, বুধবার | ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ



আজ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আসছেন কক্সবাজারে পুরো জেলা সেজেছে বর্ণিল সাজে

দীর্ঘ পাঁচ বছর পর আজ বুধবার ৭ ডিসেম্বর কক্সবাজারে আসছেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সরকার প্রধান শেখ হাসিনা। পাঁচ বছর আগে ২০১৭ সালের ২২ ডিসেম্বর তিনি উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে এসেছিলেন। প্রধানমন্ত্রীর আগমনে পুরো জেলা সেজেছে বর্ণিল সাজে। বরণ করতে প্রস্তুত জেলাবাসী। এই দিন জেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় তিনি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে ভাষণ দেবেন। এর আগে তিনি ১ হাজার ৩৯২ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ব্যয়ে ২৯ প্রকল্পের উদ্বোধন এবং একই সঙ্গে ৫ হাজার ৭শত ১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে ৪ টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন। মোট প্রকল্প ৩৩ টি। গত একমাস আগে থেকে প্রধানমন্ত্রীর জনসভা সফল করতে মাঠে নেমেছেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। উপজেলা পর্যায়েও চলছে প্রচারনা। প্রচারনায় কক্সবাজারে প্রধানমন্ত্রীর উপহার হিসেবে দেওয়া তিনটি বড় মেগা প্রকল্প ও ৭৭ টি ছোট-বড় প্রকল্পের চিত্র তুলে ধরা হচ্ছে। সবমিলিয়ে জেলায় প্রায় সাড়ে ৩ লাখ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের কাজ চলমান।

প্রধানমন্ত্রী যেসব প্রকল্প উদ্বোধন করবেনঃ
জেলা প্রশাসনের কার্যালয় থেকে প্রাপ্ত তালিকায় উদ্বোধনের জন্য প্রস্তুত ২৯ প্রকল্পগুলো হলো- কক্সবাজার গণপূর্ত উদ্যান, বাহারছড়া বীর মুক্তিযোদ্ধা মাঠ, কুতুবদিয়া ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ভবন, পেকুয়া উপজেলা ভূমি অফিস ভবন, কক্সবাজার জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয় ভবন, শেখ হাসিনা জোয়ারিয়ানালা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবন, আবদুল মাবুদ চৌধুরী উচ্চ বিদ্যালয়ের চারতলা একাডেমিক ভবন, মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের চার তলা একাডেমিক ভবন, কক্সবাজার জেলার লিংক রোড-লাবনী মোড় সড়ক চার লেনে উন্নীতকরণ, রামু-ফতেখাঁরকুল-মরিচ্যা জাতীয় মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ, টেকনাফ-শাহপরীর দ্বীপ জেলা মহাসড়কের হাড়িয়াখালী থেকে শাহপরীরদ্বীপ অংশ পুনর্নির্মাণ, প্রশস্তকরণ এবং শক্তিশালীকরণ, বাঁকখালী নদীর বন্যা নিয়ন্ত্রণ; নিষ্কাশন; সেচ ও ড্রেজিং প্রকল্প (১ম পর্যায়), শাহপরীরদ্বীপে সী ডাইক অংশে বাঁধ পুনঃনির্মাণ ও প্রতিরক্ষা কাজ, ক্ষতিগ্রস্ত পোল্ডার সমূহের পুর্নবাসন প্রকল্প, রামু কলঘর বাজার-রাজারকুল ইউপি সড়কে বাঁকখালী নদীর উপর ৩৯৯ মিটার দীর্ঘ সাংসদ ও রাষ্ট্রদূত ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরী সেতু, কক্সবাজার জেলায় নবনির্মিত ৬ টি ইউনিয়ন ভূমি অফিস ভবন, ৪টি উপজেলা পরিষদ কমপ্লেক্স ভবন (রামু, টেকনাফ, মহেশখালী ও উখিয়া), কক্সবাজার পৌরসভার এয়ারপোর্ট রোড আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, শহিদ সরণি আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, বীর শ্রেষ্ঠ রুহুল আমিন স্টেডিয়াম সড়ক আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, নাজিরারটেক শুটকি মহাল সড়ক আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, টেকপাড়া সড়ক আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, সী বীচ রোড আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, মুক্তিযোদ্ধা সরণি আরসিসিকরণ ও অন্যান্য, সৈকত-স্মরণ আবাসিক এলাকা সড়ক আরসিসিকরণ ও অন্যান্য। এসব প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৩৮৩ কোটি টাকা।

৪টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের মধ্যে যা থাকছেঃ
ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জন্য থাকা ৪ প্রকল্প হলো, বাংলাদেশ ওশানোগ্রাফিক রিসার্চ ইনস্টিটিউট (২য় পর্যায়) শীর্ষক প্রকল্প, কুতুবদিয়া উপজেলাধীন ধুরুং জিসি মিরাখালী সড়কে ধুরুংঘাটে ১৫৩ দশমিক ২৫ মিটার জেটি এবং আকবর বলি ঘাটে ১৫৩ দশমিক ২৫ মিটার জেটি নির্মাণ, মহেশখালী উপজেলাধীন মহেশখালী গোরকঘাটা ঘাটে জেটি নির্মাণ, বাংলাদেশ-মায়ানমার সীমান্ত নিরাপত্তা উন্নত করার জন্য উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় নাফ নদী বরাবর পোল্ডারসমূহের পুনর্বাসন প্রকল্প।##