আজ, সোমবার | ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৩১শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



অনুমতি ছাড়াই শুরু হয়েছে লামার ৪০টি ইটভাটা

কোন প্রকার অনুমতি, অনুমোদন ও ছাড়পত্র ছাড়াই লামা উপজেলায় শুরু হয়েছে ৪০টি ইটভাটার ইটপ্রস্তুত কার্যক্রম। ইতিমধ্যে সবকয়টি ভাটায় পাহাড় কেটে মাটি সংগ্রহ, জ্বালানি হিসাবে কাঠ মজুদ করা হয়েছে। ৩০টির বেশি ভাটার চুল্লীতে ইতিমধ্যে আগুন দেয়া হয়েছে। অনুমতি ছাড়া ইটভাটা শুরু করলেও প্রশাসন ও পরিবেশ অধিদপ্তর বান্দরবানের কোন তৎপরতা লক্ষ্য করা যায়নি।

এদিকে গত ১৩ নভেম্বর বাংলাদেশের সব জেলার অবৈধ ইটভাটা ও ইটভাটার জ্বালানি হিসেবে কাঠের ব্যবহার আগামী ৭ দিনের মধ্যে বন্ধ করার নির্দেশনা জারি করেছে বিচারপতি মোঃ আশফাকুল ইসলাম এবং বিচারপতি মোঃ সোহরাওয়ার্দীর হাইকোর্ট বেঞ্চ। মন্ত্রিপরিষদ সচিব, জনপ্রশাসনের সিনিয়র সচিব এবং পরিবেশ সচিবকে এ নির্দেশনা জারি করতে বলা হয়েছে। ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১৩ অনুসারে লাইসেন্স ব্যতীত কোনো ইটভাটা স্থাপন, অবৈধ ইটভাটাগুলো কার্যক্রম শুরু এবং জ্বালানি হিসেবে কাঠ ব্যবহারের প্রস্তুতি গ্রহণ না করার আইন থাকলেও তা না মানায় জনস্বার্থে এইচআরপিবি হাইকোর্টে রিট করেন সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট মনজিল মোরসেদ ।

বর্ষার পরপরই পাহাড়ে সবুজ প্রকৃতি সাজতে শুরু হলেও সেই পাহাড়ের বুকে আঘাত শুরু করেছে ইটভাটার মালিকরা। লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নে ৩০টি, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে ৬টি, গজালিয়া ইউনিয়নে ২টি, সরই ইউনিয়নে ১টি ও লামা পৌরসভায় ১টি ইটভাটায় মাটির জন্য সাবাড় করা হচ্ছে অসংখ্য সবুজ পাহাড় ও ফসলী জমি। সংশ্লিষ্টরা মনে করেন উন্নয়নের জন্য ইটভাটা প্রয়োজন। তবে ব্যঙের ছাতার মতো অবৈধভাবে গড়ে উঠা ভাটার কারণে পাহাড়ের প্রকৃতির সীমাহীন ক্ষতি হচ্ছে অভিযোগ পরিবেশবাদীদের।

সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, ফাইতং ইউনিয়নের হরিণখাইয়া গ্রামে বিবিএম ব্রিকসের তিন পাশে স্কেভেটর দিয়ে পাহাড় কাটা হচ্ছে। ইতিমধ্যে দুইটি বিশাল পাহাড় সাবাড় করেছে এই ব্রিকফিল্ডটি। জ্বালানী হিসাবে মজুদ করা হয়েছে বনের লাকড়ি। এই বিষয়ে কথা হয় এই ভাটার মালিক ও ব্রিকফিল্ড মালিক সমিতির সভাপতি মোক্তার মেম্বার এর সাথে। তিনি বলেন, সবাইকে ম্যানেজ করেই কাজ শুরু করেছি। অনুমতি আছে কিনা এমন প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ভাটা করতে এখন অনুমতি লাগেনা।

উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডে গড়ে উঠেছে ৩০টি ইটভাটা। সবগুলো ভাটা স্কুল, জনবসতী গ্রাম, খালেরপাড় এবং সড়কের পাশে তৈরী করা হয়েছে। চলমান বর্ষার শুরু থেকে এই ইটভাটা গুলো স্কেভেটর দিয়ে পাহাড় কেটে মৌসুমের জন্য মাটি মজুদ করেছে। এখনো চলছে পাহাড় কাটার কার্যক্রম। ইতিমধ্যে ফাইতং এলাকায় যন্ত্রের গর্জন ও ধূলাবালুতে বর্ষার সবুজ প্রকৃতি হারিয়ে যাবে এমনটি জানিয়েছেন স্থানীয়রা। শুধু ফাইতং ইউনিয়নের তিনটি ওয়ার্ডে ৩০টি অবৈধ ইটভাটা থাকার কথা নিশ্চিত করেছেন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক।

ফাইতং ইউনিয়নের মে অংপাড়ার বাসিন্দা চিংহ্লামং মারমা ও মংবাচিং মারমা বলেছেন, শুধু এবছর নয়, কয়েক বছর ধরে কাটতে কাটতে পাড়ার পাশের পাহাড়টি এখন প্রায় শেষ হওয়ার পথে। তিনি আরো জানান, যেভাবে দিন-রাত অবিরাম কাটা হচ্ছে, তাতে এ বছর আর এ পাহাড়ের অস্তিত্ব থাকবে না। পাহাড়টি পাড়াবাসীকে কালবৈশাখী ও ঘূর্ণিঝড় থেকে রক্ষা করত। ইটভাটার মালিকেরা প্রভাবশালী। পাহাড় কাটতে বাধা দিলে তাঁরা মামলা-হামলার হুমকি দেন।

লামা বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ আরিফুল হত বেলাল জানিয়েছেন, গত ২৩ অক্টোবর ২০২২ইং লামা বন বিভাগের পক্ষ থেকে উপজেলার সবকয়টি ব্রিকফিল্ডকে ইট প্রস্তুত কালিন সময়ে ইট পোড়ানো কাজে কোন প্রকার জ্বালানী কাঠ না পোড়ানোর জন্য ইট প্রস্তুত ও ভাটা স্থাপন (নিয়ন্ত্রণ) আইন-২০১৩ এর বিধি ৬ মোতাবেক নোটিশ দেয়া হয়েছে। কেউ না মানলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তর সহকারী পরিচালক মো. ফখর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শীঘ্রই আমরা অবৈধ ভাটার বিরুদ্ধে অভিযান করব। কোন অবৈধ ইটভাটা থাকবেনা।

লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মোস্তফা জাবেদ কায়সার বলেন, জেলা প্রশাসনের নির্দেশে, পরিবেশ অধিদপ্তরকে সাথে নিয়ে ইটভাটার বিরুদ্ধে অভিযান চালানো হবে।