আজ, শুক্রবার | ১৯শে জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৪ঠা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



নুর কুতুব মান্নান সভাপতি চলতি দায়িত্ব। তাঁর চিঠিতে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য কেন্দ্রীয় শ্রমিকলীগের সাধারণ সম্পাদকের আহবান।

 

প্রেস বিজ্ঞপঃ জাতীয় শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন। জাতীয় শ্রমিক লীগ আওয়ামী লীগের একটি অত্যান্ত গুরুত্বপূর্ণ ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন। সংগঠনটির সভাপতি / সম্পাদক মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সরাসরি উপস্থিতিতে কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত হন। সংগঠনটির একটি নিজস্ব শক্তিশালী গঠনতন্ত্র রয়েছে। প্রতিষ্ঠা লগ্নের পর হতে সংগঠনটির সকল সভাপতি / সম্পাদক সুনামের সহিত দায়িত্ব সম্পুর্ণ করেছেন।কারণ এযাবৎ কালের সকল সভাপতি /সম্পাদক বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের সফল নেতা ছিলেন। দায়িত্ব ও গঠনতন্ত্র মেনে সংগঠন পরিচালনা করেছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাস করোনা সহ বিভিন্ন রোগ- সুখের কারণে আমাকে অনেক নিচের সহ-সভাপতি সভাপতি র সাথে চলতি দায়িত্ব সভাপতি হিসাবে কাজ করতে হচ্ছে। এতে আমি ও বিব্রত বোধ করেছি।

আযম খসরু আরো বলেন তিনি পেশায় আইনজীবী হওয়ার কারণে নিজের স্বার্থের বাহিরে গিয়ে সংগঠন – জাতি তথা শ্রমজীবী মানুষের পক্ষে কাজ করতে পারছেন না। তার চলতি দায়িত্ব কে পুজি একটি কুচক্রী মহল তার চলতি দায়িত্বকে ব্যাবহার করে হীনস্বাথ চরিতার্থ করার চেষ্টা করেছে। সংগঠন কে তার নিজস্ব গতিতে চলতে দিচ্ছে না ফলে সংগঠন ও শ্রমজীবীরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। শ্রমিক সংগঠন সমুহ সরকারের বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহনে ও শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের সংগ্রামে ব্যার্থ হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন সংগঠনের চলতি দায়িত্বে সভাপতি বিধি মোতাবেক সংগঠনের কোন শাখা কমিটি কে কোন চিঠি দিতে পারেন না। কোন কমিটি অনুমোদন – বাতিল বা কোন বাতিলকৃত কমিটি পুনর্বহাল ও করতে পারেন না। সংগঠনের ১৫ এর উপধারায় সাধারণ সম্পাদকের ক্ষমতা নির্দ্দিষ্ট, নির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক জাতীয় শ্রমিক লীগের  নির্বাহী প্রধান। কাজেই অনুমোদন কৃত কমিটির বিষয়ে প্রদান কৃত চলতি দায়িত্ব সভাপতি র চিঠি সমুহ অবান্তর ও হাস্যকর।এই সব ভূয়া চিঠিতে বিভ্রান্ত না হয়ে সারা বাংলাদেশের জাতীয় শ্রমিক লীগের আওতাধীন সকল শাখা সমুহ কে তাদের নিজস্ব গতিতে কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য নির্দেশনা দেওয়া হল।

আযম খসরু।

সাধারণ সম্পাদক, জাতীয় শ্রমিক লীগ।

কেন্দ্রীয় কমিটি।

২৩,বঙ্গবন্ধু এভ্যানিও ঢাকা,বাংলাদেশ।