আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল,বদরখালি ও পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নের বেশি ভাগ মানুষ জেলে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

চকরিয়া সংবাদ দাতাঃ

 

কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলার সাহারবিল,বদরখালি ও পূর্ববড় ভেওলা ইউনিয়নের বেশি ভাগ মানুষ জেলে।

সেই গ্রামে সরেজমিন দেখা যায়, প্রান্তিক এই গোষ্ঠির প্রায় সবাই সাগরে মাছ ধরে জীবিকা নির্বাহ করে। জেলেদের অভিযোগ, প্রকৃত জেলেরা বিগত ২ বছর পর্যন্ত সরকারি কোন সুযোগ-সুবিধা পায়নি।

নিবন্ধন করেও সুবিধা না পাওয়া ভূক্তভোগিরা জানান, ইকবাল ও জাহাঙ্গীর নামের চকরিয়া মংস্য অধিদপ্তরের দুইজন কর্মকর্তা আমাদেরকে জেলেকার্ড করে দেয়ার কথা বলে জেলে নিবন্ধন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে ফরমের প্রাপ্ত রশিদ/ গ্রাহক কপি প্রদান করে। বিনিময়ে জাহাঙ্গীর ও ইকবাল তিন ইউনিয়নের ৩৯ জন জেলে থেকে রশিদপ্রতি ২-৩ হাজার টাকা করে লক্ষাধিক টাকা নেয়। কিন্তু দীর্ঘ ২ বছর যাবৎ উক্ত ৩৯ জন তৃনমূল মৎস্যজীবি জেলে কার্ড ও সরকার প্রদত্ত ৬৫ দিন ও ২২ দিনের “মাছ ধরা বন্ধ” প্রকল্পের কোন সুযোগ-সুবিধা দেওয়া পায় নাই। ভূক্তভূগীদের হাতে প্রদত্ত নিবন্ধন ফরমের প্রাপ্তি রশিদ রয়েছে। ভূক্তভূগীদের দাবী আগামী পবিত্র রমজান মাসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক প্রদত্ত সুযোগ-সুবিধা পায়।গত ১০ ডিসেম্বর সাহারবিল ইউনিয়নের একজন নিবন্ধিত জেলে বশির আহমদ, পিতা- ওসমান গণি, চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা বরাবরে ও ২০ ডিসেম্বর কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা বরাবরে লিখিত দুর্নীতির অভিযোগ করেন।

এ বিষয়ে দুর্নীতি রিপোর্ট২৪.কম এর জেলা প্রতিনিধিকে চকরিয়া উপজেলার সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ ফরহান তাজিম জানান, নিবন্ধনকৃত জেলেগন যদি প্রকৃত মৎসজীবি হয় তবে তারা কার্ড পাবে এ জন্য কোন প্রকার টাকা-পয়সার প্রয়োজন নাই, কারন এটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল প্রকল্প।