আজ, বুধবার | ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৫ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ



চকরিয়া সোসাইটি শাহী জামে মসজিদের সম্পাদক আলমের উপর হামলা চালিয়ে মসজিদ জবর দখলের চেষ্টা

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া.

চকরিয়া পৌর শহরের ঐতিহ্যবাহী চিরিঙ্গা সোসাইটি বায়তুল মাওয়া শাহী জামে মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরীর উপর মসজিদের ভেতরে অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলা চালানো হয়েছে। হামলায় তিনি গুরুতর আহত হয়েছেন। তাকে রক্ষায় এগিয়ে আসলে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা জয়নাল হাজারীকেও মারধরে
মারধর করে আহত করা হয়েছে। শুক্রবার জুমার নামাজের পূর্বমুহুর্তে এ ঘটনা সংঘঠিত হয়।
এদিকে এদিন রাত সাড়ে ৮টায় মসজিদের ভেতরে ঢুকে সন্ত্রাসী হামলা ও কমিটির মেয়াদ থাকাকালীন নিয়মবহির্ভূত কথিত নতুন কমিটি ঘোষণার বিরুদ্ধে সাংবাদিক সম্মেলন করে অভিযোগ করেন মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি নাছির উদ্দীন ও আহত সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরী। থানা রাস্তার মাথাস্থ সিষ্টেম চকরিয়া কমপ্লেক্স হল রুমে এ সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সভাপতি নাছির উদ্দীন অভিযোগ করে বলেন, জাহাঙ্গীর হোসাইন ও শহীদের নেতৃত্বে সাবেক মেয়র বিএনপি নেতা হায়দারের মদদপুষ্ট বিএনপির একাংশ ও কল্যাণ পাটির লোকজন জুমার নামাজ শুরু হওয়ার পূর্বমুহুর্তে কথিত একটি কমিটি ঘোষণা করার চেষ্টা করে। এসময় বাধা দিতে গিয়ে হামলার শিকার হয়েছেন মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরী। মূলত সাবেক মেয়র হায়দার-শহিদের ৫ বছর ও জাহাঙ্গীর-শহিদ গংয়ের ৯ বছরের কোটি কোটি টাকা মসজিদের আয়-ব্যয়ের হিসাব চাওয়ায় অবৈধ উপায়ে লুটে নেওয়া মসজিদের অর্থ ফেরৎ দেওয়ার ভয়ে কথিত কমিটি নামক কাহিনী ও হামলা চালিয়েছে। এছাড়া মসজিদের মালিকানাধীন জমির উপর স্থিত মাদরাসা মার্কেটের অর্থ আত্বসাতের লোভে পৌর কাউন্সিলর মুজিবও এ হামলার পরিকল্পনায় অংশ নেন। তিনি পরিকল্পিত সন্ত্রাসী ঘটনার তিব্র প্রতিবাদ জানিয়ে ঘটনার যথাযথ বিচার দাবি করেন।
আহত মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরী বলেন, মসজিদের কর্তৃত্ব নেওয়া জন্য তার উপর হামলা করে। এতে তার সম্মানের ক্ষতি ও শারীরিক ভাবে আহত হয়েছেন।

তিনি ঘটনার বিষয়ে চকরিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
তিনি জানান, তাদের কমিটির মেয়াদ আরো দুই বছরের অধিক সময় রয়েছে। কিন্তু লোভে পড়ে জাহাঙ্গীর ও শহীদ চক্র এ ধরনের ঘটনা করেছে। পূর্বের সব কমিটি বসে প্রশাসনের মাধ্যমে সঠিক হিসাব দিতে পারলে এবং আমাদের কমিটির বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোন অভিযোগ প্রমাণিত করতে পারলে আমরা সসম্মানে দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে চলে আসবো। কিন্তু আমাদের চলমান কমিটির উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ করা যাবেনা, প্রয়োজনে উচ্চ আদালতের স্বরণাপন্ন হবো।
এদিকে মসজিদের ভেতরে ঢুকে পৌর আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক ও মসজিদ পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন আলমগীর চৌধুরীর ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারসহ আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন চকরিয়া পেকুয়া আসনের সাবেক সংসদ সদস্য আলহাজ্ব জাফর আলম এমএ, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু মুছা ও পৌরসভা আওয়ামীলীগের সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু।