আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



চকরিয়ায় আওয়ামীলীগের প্রার্থীর সমর্থকের উপর হামলায় আহত ১২, ৯ গাড়ি ভাংচুর বিস্তারিত কমেন্টে…

সংবাদ দাতা মোঃ শাহেদুল ইসলাম

কক্সবাজার ১ চকরিয়া-পেকুয়া আসনে আওয়ামীলীেগ মনোনীত প্রার্থী সালাহ উদ্দিন আহমদ বুধবার দুপুরে ঢাকা থেকে চকরিয়ায় ফিরেছেন। তাঁর চকরিয়া আসাকে কেন্দ্র আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের শোডাউনে পথে পথে বাঁধা প্রদান, হামলা ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

এর মধ্যে সাহারবিল এলাকায় হামলায় এ পর্যন্ত ১২ জন আহত হয়ে চকরিয়া হামলা চিকিৎসা নিয়েছেন। যার মধ্যে সাহারবিল ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ইউপি সদস্য এনামুল হককে গুরুতর অবস্থায় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।

আহত এনামুল হক জানিয়েছেন, আওয়ামীলীগের প্রার্থী মনোনয়ন নিয়ে এলাকা ফিরেছেন। যার জন্য গাড়ি নিয়ে চকরিয়া স্টেশনে যাওয়ার সময় রামপুরা এলাকা পৌঁছলে সাহারবিল এলাকার চেয়ারম্যান নবী হোসেনের নেতৃত্বে হামলা চালানো হয়। এসময় ভাংচুর করা হয়েছে ৯ টি গাড়ি।

জরুরী বিভাগে দায়িত্বরত চিকিৎসক আবু জাফর মোহাম্মদ সাদেক জানিয়েছেন, সাহারবিল ঘটনায় এ পর্যন্ত ১২ জন আহত হয়ে হাসপাতালে এসেছেন। যার মধ্যে এনামুল হককে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হচ্ছে। তার অবস্থা গুরুতর।

চকরিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) অরুপ কুমার চৌধুরী সাহারবিল এলাকায় একটি সংঘর্ষের খবর তিনি পেয়েছেন জানিয়ে বলেন, ঘটনাস্থলে ওসির নেতৃত্বে পুলিশ গেছে। বিস্তারিত পরে জানা যাবে।

চকরিয়ার থানার ওসি শেখ মোহাম্মদ আলী ফোন রিসিভ করেননি।

আওয়ামীলীেগ মনোনীত প্রার্থী কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সালাহ উদ্দিন আহমদ জানিয়েছেন, তার শোডাউনে আগত নেতা-কর্মীদের পথে পথে বাঁধা, হামলা ও ভাংচুর চালাচ্ছেন মনোনয়ন বঞ্চিত এমপি জাফর আলমের লোকজন। যেখানে সাহারবিল এলাকায় নবী হোসেন, স্টেশনে এমপি জাফরের পুত্র তুহিন, ভাগানি জিয়াবুল সহ সন্ত্রাসীরা হামলা ও ভাংচুরে নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

বিষয়টি নিয়ে এমপি জাফর আলম, নবী হোসেন চেয়ারম্যান, তুহিন এবং জিয়াবুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে কেু্ ফোন রিসিভ করছেন না।

ইতিমধ্যে এমপি জাফর আলম ওই আসনটি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালাচ্ছেন।