আজ, বুধবার | ২৪শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ



কুতুবদিয়ায় খতিয়ান ও ওয়ারিশ সনদ জালিয়াতির মামলায় ৭ প্রতারক কারাগারে

কুতুবদিয়া প্রতিনিধিঃ

কক্সবাজারের কুতুবদিয়ায় ওয়ারিশ সনদ জালিয়াতি করে জমি বিক্রির অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ভূয়া ওয়ারিশ সনদ উত্তোলনকারীসহ জমি বিক্রিতে জড়িত ৭ জনকে সিডাব্লিউ মূলে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন কুতুবদিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক। বাকি ৭জন আসামীকে আগামী ধার্য্য তারিখ পর্যন্ত জামিন মঞ্জুর করেছেন। 

বাদী পক্ষের ফাইলিং আইনজীবী এডভোকেট এস.এম. ছাইফুল্লাহ খালেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
বাদী পক্ষের আইনজীবী জানান, বুধবার (১৩ সেপ্টেম্বর) সিআর-১৬৩/২৩ মামলার ধার্য তারিখ ছিল। বাদি ও বিবাদী পক্ষের সকলেই হাজির ছিলেন। বিজ্ঞ আদালত উভয় পক্ষের আইনজীবীদের বক্তব্য শুনেন। শুনানি শেষে  বিজ্ঞ আদালত ৪৬৭ এবং ৪৬৮ ধারায় ১ থেকে ৬ ও ১১ নং আসামীর জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরনের নির্দেশ দেন। বাকি ৭ জন আসামির জামিন মঞ্জুর করেন।
জেল হাজতে প্রেরণ করা আসামীরা হলেন, তৈাহিদুল ইসলাম কাজল (৫৩), আসমাউল হুসনা (৪৫),সাবিহা জান্নাত বাপ্পী (৪০), সানজিদা ইসলাম (৩৬), শেখ রাশেদুল ইসলাম (৩৬), শেখ রৌশন জামাল রুজি (২৬) ও নুরুল ইসলাম (৪০)।
জামিন পাওয়া আসামীরা হলেন-মোহাম্মদ ফরিদুল আলম (৪৭), কফিল উদ্দিন (৪৮), মোহাম্মদ ইসমাইল (৪৭), আবদুল হামিদ (৪৯), নিলুফা খানম (৪২),মেজবাহ উদ্দিন হেফাজ (৪৭) ও মোহাম্মদ জহির (৫৯)।
বাদি কায়েস উদ্দিন জানান, এটা একটি আলোচিত মামলা। মেডিকেল গেইট স্টেশনের কাছে একটি জায়গা জোর করে বেচা-কেনায় লিপ্ত হয় বিবাদী পক্ষ। তারা ধনে বলে বলিয়ান এবং ক্ষমতাশালী বক্তি। খতিয়ানে আপোষ বন্টনে উল্লেখ জায়গায় বিবাদী পক্ষের কোন দখল না থাকা সত্ত্বেও এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে বাদি পক্ষের  ১৮৪৯ খতিয়ানভূক্ত জমি বিবাদী পক্ষ যোগসাজশে ক্রয়-বিক্রয়ে লিপ্ত হয়ে ত্রাসের সৃষ্টি করেন।