আজ, মঙ্গলবার | ২৭শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ



চকরিয়া থানা সেন্টারে অবৈধভাবে দখলে নিয়েছে সংখ্যালগুর জমি, বাধা দেয়ায় হত্যার হুমকি

চকরিয়া প্রতিনিধি:
বহুতল ভবন নির্মাণ করেছেন, কিন্তু চলাচলের জন্য কোন বৈধ জমি নেই। করেন সংখ্যালগুর (হিন্দু সম্প্রদায়) জমি দিয়ে চলাচল। ভবনের কাজ শেষ করে চলাচল পথটি রেজিষ্ট্রি নেয়ার কথা বলে সময় ক্ষেপনও করে। কিন্তু সম্প্রতি জমি রেজিষ্ট্রি কিংবা দখল ছেড়ে দেওয়ার জন্য বললে সংখ্যালগু সম্প্রদায়কে দেয়া হয় প্রাণনাশের চেষ্টাসহ নানাভাবে হুমকি-ধমকি। এধরণের অভিযোগ করেন জমি মালিক বাদল কান্তি সুশীল। ঘটনাটি ঘটেছে চকরিয়া থানা সেন্টার এলাকায়।
এঘটনায় চকরিয়া পৌরসভা ৪নং ওয়ার্ডের বাটাখালী এলাকার মৃত কৃষ্ট কুমার সুশীলের পুত্র বাদল কান্তি সুশীল (৫৫) বাদী হয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন, এতে বিবাদী করা হয়েছে; চকরিয়া পৌরসভা ৫নং ওয়ার্ডের করাইয়া ঘােনা গ্রামের মৃত আনোয়ার হোছনের পুত্র জয়নাল আবেদীন (৪২),  শওকত ওসমান (৩৮), আবদুল মোনাফ (৫২), তাদের ভাতিজা ও মৃত নুর মোহাম্মদের পুত্র মো: মিজানুর রহমান (৩৮)কসহ অজ্ঞাত কয়েকজনকে।
অভিযোগে জানাগেছে, বাদী বাদল কান্তি সুশীলের নামে চকরিয়া থানা সেন্টার এলাকায় ভরামুহুরী মৌজার আর,এস খতিয়ান নং- ১০৭, দাগ নং- ৭৩/৫৭৩, বি.এস খতিয়ান নং- ১৪০, সৃজিত বি.এস খতিয়ান নং- ১৭৭৫, দাগ নং- ২২ এর চিহ্নিত ১.৫০ শতক (সাড়ে চার কড়া) জমি রয়েছে। পক্ষান্তরে অভিযুক্ত শওকত হোসেন ও তার স্ত্রীর নামে বিএস ২৩ দাগে প্রায় ৩১ কড়া জমি রয়েছে। উক্ত ৩১ কড়া জমি ছাড়াও অতিরিক্ত ৩কড়া জমি অবৈধভাবে জবর দখল করে রেখেছেন। তাতে শওকত টাওয়ার নামে বহুতল ভবনও নির্মাণ করেন। কিন্তু বাদী বাদল কান্তি সুশীল গং তা নিয়ে কোন আপত্তি তুলছেন না। নিরীহ হিন্দু সম্প্রদায়ের জমি জবর দখল করে প্রথম দফায় সুযোগ পাওয়ায় পূণরায় বাদী পক্ষের নামীয় সাড়ে চার কড়া মূল্যমান জমিকে চলাচল পথ হিসেবে ব্যবহারের চেষ্টা চালায়। তাতে বাধা দেয়ায় অভিযুক্ত বিবাদী গং বাদীর কাছ থেকে যেকোন সময় উচিত মূল্য দিয়ে জমি রেজিষ্ট্রি নেয়ার কথা বলে প্রশাসনিক ও স্থানীয় বিচারে সময় ক্ষেপন করেন। এমনকি তৎকালীন চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী ও উপপরিদর্শক গৌতম রায় সরে জমিনে গিয়ে বাদল কান্তি সুশীলের বৈধ মালিকানাধীন দাবীকৃত বুঝিয়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশনাও দেন। তখনোও তপশীলোক্ত রেজি: মূলে জমি খরিদ করবেন মর্মে প্রতিশ্রুতি দেন।
জমি মালিক বাদল কান্তি সুশীল অভিযোগ করেন, গত ৫ফেব্রুয়ারী’২২ইং দুপুর ২ ঘটিকার সময় বিবাদীগণকে আমার জমি দিয়ে অবৈধ চলাচল ও জবর দখল চেষ্টা থেকে বিরত থাকার জন্য বাধা নিষেধ করলে তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে কোন ধরণের জমি রেজিষ্ট্রি নেবেনা এবং উল্টো তাকে মারিবে, কাটিবে, খুন করিবে, জমিতে রক্তক্ষয়ী ঘটনা করিবে ও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে হয়রাণী করবে মর্মে হুমকি-ধমকি প্রদর্শন করে। তিনি সংখ্যালগু হওয়ায় হুমকিতে জমি ও নিজের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বলে জানান।
তাই তিনি অবৈধ জবর দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানান।
চকরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: ওসমান গনি বলেন, চলাচল পথে জমির বিরোধ সংক্রান্ত বাদল কান্তি সুশীল এর একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছেন। তা তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে অপারেশন অফিসার (এসআই) রাজীব চন্দ্র সরকারকে নির্দেশনা দিয়েছেন। এরপরও দু’পক্ষের সৃষ্ট সমস্যা নিরশনের লক্ষ্যে তিনি শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) জুমার নামাজের পর সরে জমিনে গিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন এবং শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার্থে উভয়পক্ষকে ডকুমেন্টপত্র নিয়ে থানায় উপস্থিত হওয়ার জন্য বলেন।
চকরিয়া সার্কেলের সিনিয়র সহকারি পুলিশ সুপার  মো. তফিক আলম জানান, তিনি বাদল কান্তি সুশীলের জমি বিরোধ সংক্রান্ত বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখছেন এবং সে অনুযায়ী অফিসার ইনচার্জকে নির্দেশনাও দিয়েছেন।