আজ, শুক্রবার | ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ



আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে : পরীমনি

আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে : পরীমনি

 

ক্ষুব্ধ কণ্ঠে এ কথা বলার পর পরীমনিকে সাততলার লিফটের সামনে নিয়ে যাওয়া হয়। তখন একজন সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে পরীমনি বলেন, ‘আমার বিরুদ্ধে যে মামলা দেওয়া হয়েছে, তা ১০০ ভাগ মিথ্যা মামলা।’

 

সাংবাদিকদের উদ্দেশে চিৎকার করে কথা বলেন পরীমনি 

# সাংবাদিকদের উদ্দেশে চিৎকার করে কথা বলেন পরীমনি। 

 

পরীমনি এ কথা বলে লিফটের ভেতর ঢুকে যান। তখনো তিনি কিছু একটা বলার চেষ্টা করছিলেন। এ সময় কয়েকজন নারী পুলিশ সদস্য তাঁর সামনে গিয়ে দাঁড়ান। তখন চিৎকার করে পরীমনি বলেন, ‘আমাকে কথা বলতে দেওয়া হচ্ছে না। আমাকে ওপেন সার্চ করেন।’

লিফট থেকে নামার পর আদালতের হাজতখানার সামনের ফটকে আসার পর পরীমনি আবার কথা বলতে থাকেন। চিৎকার করে তিনি বলতে শুরু করেন, ‘আপনারা মিডিয়া তাকায় তাকায় দেখেন আমাকে। আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হয়েছে। আমি জীবনে…।’ পরীমনির এই বক্তব্যের পর তাঁর সঙ্গে থাকা নারী পুলিশ সদস্যরা তাঁকে নিয়ে দ্রুত হাজতখানার দিকে নিয়ে চলে যান। এরপর বেলা তিনটার পর পরীমনিকে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায় সিআইডি পুলিশ।

 

কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে পরীমনিকে আদালতে হাজির করা হয় 

# কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে পরীমনিকে আদালতে হাজির করা হয়।

 

৪ আগস্ট রাজধানীর বনানীতে পরীমনির বাসায় অভিযান চালায় র‍্যাব। কয়েক ঘণ্টার অভিযান শেষে র‍্যাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, তাঁর বাসা থেকে বিদেশি মদের পাশাপাশি আইস ও এলএসডি নামের মাদক পাওয়া গেছে। এই অভিযোগে বনানী থানায় মামলা করে র‍্যাব। সেই মামলার তদন্ত করছে সিআইডি। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনের যে ধারায় পরীমনির বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে, তা প্রমাণিত হলে তাঁর সর্বোচ্চ পাঁচ বছর কারাদণ্ড হতে পারে।

 

পরীমনির কান্না

 

আজ মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে পরীমনিকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। প্রথমে তাঁকে রাখা হয় ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের হাজতখানায়। প্রায় দুই ঘণ্টা তাঁকে হাজতখানায় রাখা হয়। পরে বেলা ১টা ৫৭ মিনিটে তাঁকে নেওয়া হয় আদালতকক্ষে। তাঁকে ঢোকানো হয় আসামির কাঠগড়ায়। এ সময় কাঠগড়ার অগ্রভাগে লোহার শিক ধরে দাঁড়িয়ে থাকেন তিনি।

 

দৃশ্যত হতাশ পরীমনিকে আদালতকক্ষে কাঁদতে দেখা যায় 

# দৃশ্যত হতাশ পরীমনিকে আদালতকক্ষে কাঁদতে দেখা যায়।

 

শুনানির শুরুতে রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু পরীমনিকে কেন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার, তার পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন। তিনি বলেন, পরীমনির বাসা থেকে নতুন ধরনের মাদক আইস, এলএসডি পাওয়া গেছে। এই মাদকের উৎস কী, সেটি জানার জন্য তাঁকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা জরুরি।

রাষ্ট্রপক্ষের কৌঁসুলির বক্তব্য শেষ হলে পরীমনির আইনজীবী মজিবুর রহমান আদালতে বলেন, পরীমনি জনপ্রিয় একজন নায়িকা। আমেরিকার প্রখ্যাত বাণিজ্য সাময়িকী ফোর্বসের প্রকাশ করা এশিয়ার ১০০ ডিজিটাল তারকার তালিকায় নাম রয়েছে বাংলাদেশি এই অভিনেত্রীর। তাঁর প্রতি অন্যায় আচরণ করা হচ্ছে। তাঁকে তো চার দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। নতুন করে তো তাঁকে রিমান্ডে নেওয়ার কোনো যৌক্তিকতা নেই।

পরীমনির আইনজীবী যখন আদালতের কাছে এসব কথা বলছিলেন, তখন কাঁদতে থাকেন পরীমনি। কয়েক মিনিট ধরে চলে তাঁর কান্না।
উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনে পরীমনিকে আবার দুই দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেন আদালত।

 

একই পোশাকে পরীমনি

 

গত ৪ আগস্ট বনানীর বাসা থেকে পরীমনিকে নিয়ে যায় র‍্যাব 

# গত ৪ আগস্ট বনানীর বাসা থেকে পরীমনিকে নিয়ে যায় র‍্যাব।

 

লাল-কালো চেক শার্ট, ব্লু জিনস আর সাদা কেডস পরা পরীমনিকে ছয় দিন আগে বনানীর বাসা থেকে আটক করে নিয়ে যায় র‍্যাব। পরদিন আদালতে হাজির করার সময় একই পোশাকে ছিলেন তিনি। চার দিনের রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার আবার যখন এই চিত্রনায়িকাকে আদালতে নেওয়া হয়, সেই একই পোশাকে তাঁকে দেখা যায়।

 

মঙ্গলবার আদালতে পরীমনি 

# মঙ্গলবার আদালতে এক কাপড়ে পরীমণি।

 

সিআইডির হেফাজতে থাকা পরীমনির পোশাকের এই বিষয়টি আদালতে শুনানির প্রসঙ্গ হয়েছে। তাঁর আইনজীবী মজিবুর রহমান আদালতে বলেছেন, পরীমনিকে তাঁর স্বজনদের সঙ্গে দেখা করতে দেওয়া হচ্ছে না। এ জন্য তাঁকে কাপড়চোপড়ও সরবরাহ করতে পারছেন না স্বজনেরা। গ্রেপ্তার হওয়ার পর থেকে পরীমনি একই পোশাক পরে আছেন।

পরীমনির আইনজীবীর এই বক্তব্যের প্রতিবাদ করে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান কৌঁসুলি আবদুল্লাহ আবু আদালতে বলেছেন, পরীমনির এককাপড় পরে থাকার পেছনে ‘রাজনীতি’ থাকতে পারে। চাইলেই তিনি অন্য কাপড় পরে আসতে পারতেন। পরীমনির আইনজীবীর যে বক্তব্য, তা মোটেও সঠিক নয়।

 

গত ৫  আগস্ট আদালতে পরীমনি 

# গত ৫ আগস্ট আদালতে পরীমনি।

 

এই দাবির পক্ষে যুক্তি হিসেবে পরীমনির সঙ্গে একই দিনে গ্রেপ্তার প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজের আজ ভিন্ন পোশাকে আদালতে হাজির হওয়ার কথা উল্লেখ করেন তিনি। আবদুল্লাহ আবু বলেন, নজরুল ইসলাম রাজ গ্রেপ্তার হওয়ার পর যে পোশাক পরে আদালতে এসেছিলেন, আজ তিনি তো অন্য পোশাক পরে এসেছেন। পরীমনির একই পোশাক পরার মধ্যে রাজনীতি থাকতে পারে।

 

পরীমনির দেখা পেতে আজ আদালতে এসেছিলেন নানা শামসুল হক, তবে নাতির মুখ না দেখেই ফিরতে হয়েছে তাঁকে 

# , পরীমনির দেখা পেতে আজ আদালতে এসেছিলেন নানা শামসুল হক, তবে নাতির মুখ না দেখেই ফিরতে হয়েছে তাঁকে।

 

পরীমনির মা–বাবা নেই। তিনি বড় হয়েছেন পিরোজপুরে নানার বাড়িতে। তাঁকে দেখার জন্য আজ দুপুর ১২টার দিকে সিএমএম আদালতের হাজতখানার সামনে আসেন নানা শামসুল হক। তখন পরীমনি ছিলেন হাজতখানার ভেতরে। বয়সে প্রবীণ শামসুল হক এ সময় সাংবাদিকদের বলেন, তাঁর নাতি ষড়যন্ত্রের শিকার।

সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলা শেষ হলে শামসুল হককে নিয়ে যাওয়া হয় সিএমএম আদালত ভবনের সাত তলায়। সেখানে একটি আদালতকক্ষে বসেছিলেন তিনি। যখন পরীমনির রিমান্ড শুনানি হয়, তখন সেই কক্ষে তিনি ছিলেন না। রিমান্ড শুনানি শেষে পরীমনিকে যখন নিচে নামানো হচ্ছিল, তখন সেখানে আসেন নানা শামসুল হক। তবে মানুষের ভিড়ে পরীমনিকে তিনি আর দেখতে পারেননি। এরপর পরীমনিকে না দেখেই তিনি আদালত চত্বর ত্যাগ করেন।

 

 

পরীমনির আইনজীবী মজিবুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, ‘পরীমনির নানার বয়স ১০০ বছরের বেশি বলে আমরা জানতে পেরেছি। তাঁর জন্য আমরা আবেদন রেখেছি। তাঁকে অন্তত পরীমনির সঙ্গে আদালতে দেখা করে কথা বলার অনুমতি দেওয়া হোক। পরীমনির কোথায় কী আছে, তাঁর চাবি, তাঁর চেক বই কোথায় আছে, সেগুলো কেউ জানে না। আইনজীবীকে সহযোগিতা করার জন্য প্রয়োজনীয় কাগজপত্রও কেউ সরবরাহ করতে পারছেন না। তখন আদালতসংশ্লিষ্ট আমলি আদালতে এ বক্তব্য উপস্থাপনের পরামর্শ দেন।’

 

নজরুল রাজ–মৌ রিমান্ডে

 

প্রযোজক নজরুল ইসলাম রাজ ও তাঁর সহযোগী সবুজ আলীকে পৃথক দুটি মামলায় ছয় দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। নজরুল রাজকে মাদক মামলায় দুই দিন এবং পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের মামলায় চার দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এ ছাড়া মোহাম্মদপুর থানার মাদক মামলায় মরিয়ম আক্তার মৌকে আবার দুদিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদলত। তাঁকে ১০ দিন রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেছিল সিআইডি। এ ছাড়া জাল টাকা উদ্ধারের ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনের মামলায় মাসুদুল ইসলাম জিসানকে আবার দুদিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দিয়েছেন আদালত। সূত্র-প্রথম আলো।