আজ, শুক্রবার | ৩রা ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ১৮ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ



বাঙালিয়ানার চর্চার পুনর্জাগরণ করতে হবে সবাইকে: হাসানুল হক ইনু

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ জাতীয়সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বলেছেন, বাঙালিয়ানার চর্চার পুনর্জাগরণ করতে সবাইকে পোশাকে, নামকরণে, খাওয়া, গান-বাজনা ও শিক্ষায় বাঙালিয়ানার ছাপ দেখাতে হবে। সব ধরনের সাম্প্রদায়িকতার ছাপ-ছোপ বর্জন করে বাঙালিয়ানার সংস্কৃতির পুনর্জাগরণ করতে হবে।

একইসঙ্গে বাঙালিত্ব ও বাঙালিয়ানার ওপর আক্রমণকারীদের মোকাবিলারও আহ্বান জানিয়েছেন

তিনি।

শনিবার (২ অক্টোবর) কক্সবাজারে অনুষ্ঠিত জাসদের সহযোগী সংগঠন জাতীয় যুব জোটের কেন্দ্রীয় কর্মশালার সমাপনী অধিবেশনে তিনি এসব কথা বলেন।

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘বাঙালিত্বকে কেন্দ্র করেই মহান মুক্তিযুদ্ধ এবং একটি জাতিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা হয় ১৯৭১ সালে। বাঙালিত্বকে ধারণ করে এবং উপজাতিসত্ত্বাসমূহের মর্যাদাকে স্বীকার করে বাঙালিয়ানাকে কেন্দ্র করে হাজার বছরের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি গড়ে উঠেছে। যারা বাংলাদেশবিরোধী, পাকিস্তানপন্থি, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদে বিশ্বাসী, তারা সব সময় বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, সংস্কৃতির ওপর আক্রমণ করে; বাঙালিয়ানার চর্চায় বাধা দেয়; বিজাতীয় সংস্কৃতি চাপিয়ে দেয়; মুক্তিযুদ্ধকেও অস্বীকার করে। তাই বাঙালিত্ব ও বাঙালিয়ানার ওপর আক্রমণকারীদের মোকাবিলা, দমন ও বর্জন করতে হবে।’

জাসদের এ শীর্ষনেতা বলেন, ‘সাম্প্রদায়িকতা হচ্ছে বিষাক্ত সাপ, বিষাক্ত সাপকে বিশ্বাস করতে নেই, যে কোনো সময় ছোবল দিতে পারে। মীমাংসিত বিষয় যারা মানে না, তারা মূলত বাংলাদেশবিরোধী, গণতন্ত্রবিরোধী, সমাজবিরোধী শক্তি; তারা দেশদ্রোহী, জাতীয় বেঈমান।’

এসময় তিনি উন্নয়ন-সুশাসন-সমাজতন্ত্রের পাশাপাশি বাঙালিয়ানা সংস্কৃতির পুনর্জাগরণের আন্দোলন এগিয়ে নিতে জাতীয় যুব জোট নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান।

সাবেক এ তথ্যমন্ত্রী বলেন, দুর্নীতিবাজেরা হচ্ছে অর্থনীতির বিষফোড়া, ফসল কাটা ইঁদুর। করোনাকালেও কিছু চোর স্বাস্থ্যখাতে চুরি করেছে। দুর্নীতির কারণে সর্বত্র অর্থনৈতিক বৈষম্য বাড়ছে।

জাতীয় যুব জোটের সভাপতি রোকনুজ্জামান রোকনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় আরও বক্তব্য রাখেন, জাসদের সহ-সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা শফি উদ্দিন মোল্লা, দপ্তর সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন ও জাতীয় যুব জোটের সাধারণ সম্পাদক শরিফুল কবির স্বপন।

কর্মশালায় বিভিন্ন পর্বে কথা বলেন, জাতীয় যুব জোটের সহ-সভাপতি কাজী সালমা সুলতানা, আসিফুর রহমান বাবু, আমিনুল আজিম বনি, প্রদীপ কুমার রায়, প্রভাষক আমিনুল ইসলাম কোহিনুর, শভংকর দে বাপ্পা, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম আক্তার বাবু, মোহম্মদ সামসুল ইসলাম সুমন, ধীমান বড়ুয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক শরিফুল ইসলাম সুজন, রমজান আলী সিকদার, হাসানুজ্জামান তুহিন, সুজন প্রসাদ, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক অজিত কুমার দাস হিমু প্রমুখ।

এতে জাতীয় যুব জোটের কেন্দ্রীয় নেতারা অংশ নেন।